গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, ঢাকা

[মূল্য সংযোজন কর]

প্রজ্ঞাপন

তারিখ: ২৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪০৬ বঙ্গাব্দ /১০ জুন, ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দ

এসআরওনং- ১৩৮-আইন /৯৯/২১৮-মূসক।– মূল্য সংযোজন কর আইন, ১৯৯১ (১৯৯১ সনের ২২নং আইন) এর ধারা ৭২, ধারা ৬(৪) এর সহিত পঠিতব্য, এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড নিম্নরূপ বিধিমালা প্রণয়ন করিল, যথা :

১। বিধিমালার নাম।– এই বিধিমালা শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড থেকে অগ্রিম মূল্য সংযোজন কর আদায় সংক্রান্ত (বিশেষ) বিধিমালা, ১৯৯৯ নামে অভিহিত হইবে।

২। সংজ্ঞা।– বিষয় বা প্রসঙ্গের পরিপন্থী কিছু না থাকিলে, এই বিধিমালায়-

(ক) ‘‘আইন’’ অর্থ মূল্য সংযোজন কর আইন, ১৯৯১ (১৯৯১ সনের ২২নং আইন);

(খ) ‘‘বিধিমালা’’ অর্থ মূল্য সংযোজন কর বিধিমালা, ১৯৯১;

(গ) ‘‘কর’’ অর্থ আইনের ধারা-৩ এ বর্ণিত মূল্য সংযোজন কর; এবং

(ঘ) ‘‘শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড’’  অর্থ এমন কোনো স্থান যেখানে স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত অথবা আমদানিকৃত শিপ/ জাহাজ বিচিং করে কর্তন/ ভাঙ্গার মাধ্যমে শিপ স্ক্র্যাপ তৈরি করাহয়;

(ঙ) ‘‘কমিশনার (আমদানি)’’  অর্থ যে শুল্ক ভবন দিয়ে আমদানিকৃত শিপ/ জাহাজ খালাস হইবে সেই বন্দরের দায়িত্ব প্রাপ্ত কমিশনার অব কাস্টমস;

(চ) ‘‘বিভাগীয় কর্মকর্তা’’ অর্থ কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট বিভাগের দায়িত্বে নিয়োজিত সহকারী কমিশনার বা উপ-

কমিশনার।

৩। কর আদায়।– আইনের অধীন প্রণীত অন্য কোনো বিধিতে যাহাই থাকুক না কেন, শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড হইতে শিপ স্ক্র্যাপ সরবরাহের ওপর প্রদেয় কর এই বিধিমালায় বর্ণিত পদ্ধতিতে আদায় হইবে।

৪।কর  নিরূপণ পদ্ধতি:

(ক) আমদানিকৃত শিপ স্ক্র্যাপের জন্য নির্ধারিত ট্যারিফ মূল্যের ওপর পনের শতাংশ হারে কর আরোপযোগ্য হইবে।

(খ) স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত শীপ স্ক্র্যাপ এর ক্ষেত্রে আনুপাতিক হারে প্রতি মেট্রিক টন শীপের ক্রয় মূল্যের সাথে আমদানিকৃত

শীপ স্ক্র্যাপ এর জন্য নির্ধারিত ট্যারিফ মূল্য যোগ করে প্রতি মেট্রিক টন শীপ স্ক্র্যাপ এর মূল্য নির্ধারণ করিতে হইবে।

নির্ধারিত মূল্যের উপর পনের শতাংশ হারে কর আরোপযোগ্য হইবে।

[(গ) আমদানিকৃত ও স্থানীয়ভাবে ক্রয়কৃত স্ক্র্যাপ ভেসেলে বাহিত পণ্য যেমন, ফার্নেস অয়েল, ডিজেল, আসবাপত্র, ফ্রিজ,

টিভি, এয়অর কন্ডিশনার, মোটর, পাখা, টয়লেট সামগ্রী, ইত্যাদি খালাসের সময় মূল্য সংযোজন কর চালানপত্র ‘মূসক’

অথবা ‘মূসক-১১ক’ এর মাধ্যমে  খালাস গ্রহন করিতে হইবে। প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ স্থানীয় বিক্রয়ের ন্যায় মূল্যের উপর

{২.২৫%} হারে কর পরিশোধ করিয়া পণ্যসমূহ খালাস করিতে পারিবেন। সে ক্ষেত্রে বাহিত পণ্যসমূহের উপর আমদানি

পর্যায়ে পরিশোধিত মূসক রেয়াত হিসাবে গ্রহনযোগ্য হইবে না।]

৫। কর পরিশোধ পদ্ধতি: নিবন্ধিত প্রতিটি শীপ ব্রেকিং ইয়ার্ড আমদানিকৃত শীপ সআক্র্যাপের উপর আরোপিত মূল্য সংযোজন কর পরিশোধ করার লক্ষ্যে ‘ফরম-ক’ এ সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় কর্মকর্তার নিকট একটি ঘোষনা প্রদান করিবেন। বিভাগীয় কর্মকর্তার ঘোষণা সম্পর্কিথ তথ্য থেকে জাহাজের ওজনের দশ শতাংশকে অপচয় বিবেচনা করিয়া বিধি-৪ এ উল্লিখিত মূল্যের ভিত্তিতে স্থানীয় পর্যায়ে মোট পরিশোধযোগ্য করের পরিমাণ নির্ধারণ করিবেন এবং নির্ধারিত পরিমাণ কর বিধিমালার বিধি-২৪ অনুযায়ী ট্রেচারী চালানের মাধ্যমে সরকারি কোষাগারে জমা প্রদানের জন্য শীপ ব্রেকিং ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষকে অবহিত করিবেন। [আমদানিকৃত ও স্থানীয়ভাবে ক্রয়কৃত স্ক্র্যাপ ভেসেলে বাহিত পণ্যের বিক্রয় মূল্যের উপর প্রদেয় {২.২৫%} হারে মূল্য সংযোজন কর পণ্য খালাসের পূর্বে অগ্রিম প্রদান করিবেন।] শীপ ব্রেকিং ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত পরিমাণ মূল্য সংযোজন কর ট্রেজারিতে জমা প্রদান পূর্বক মূল্য সংযোজন কর বিধিমালা ২৪(১) অনুযায়ী ফরম ‘মূসক-১৯’ এ একটি দাখিলপত্র বিভাগীয় দপ্তরে পেশ করিবেন, যাহার সঙ্গে কর জমা প্রদানের প্রমাণস্বরূপ ট্রেজারি চালানের মূল কপি সংযুক্ত করিতে হইবে।

৬। বিচিং এর অনুমতি।– শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড কর্তৃক দাখিলকৃত দাখিলপত্রের ভিত্তিতে-

(ক) আমদানিকৃত শিপ স্ক্র্যাপের ক্ষেত্রে বিভাগীয় কর্মকর্তা ‘‘ফরম-খ’’ তে একটি প্রত্যয়নপত্র প্রদান করিয়া উহার একটি

অনুলিপি কমিশনার (আমদানি) কে প্রদান করিবেন; আমদানি সম্পর্কিত শুল্ক আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হইলে কমিশনার

(আমদানি) উক্ত প্রত্যয়নপত্র প্রাপ্তির পর আমদানিকৃত শিপের বিচিং এর অনুমতি প্রদান করিবেন;

(খ) স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত শিপ ভাঙ্গিয়া স্ক্র্যাপের ক্ষেত্রে বিভাগীয় কর্মকর্তা ‘‘ফরম-খ’’ এর একটি অনুলিপি সংশ্লিষ্ট

কমিশনারের নিকট প্রেরণ করিবেন; কমিশনার উক্ত ‘ফরম-খ’ এর ভিত্তিতে স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত শিপের বিচিং এর

অনুমতি প্রদান করিবেন।

 

৭।  কর চালানপত্র প্রদান।– নিবন্ধিত শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডকে প্রতিটি সরবরাহের ক্ষেত্রে ফরম ‘মূসক-১১’ এ ক্রেতার অনুকূলে একটি চালানপত্র ইস্যু করিতে হইবে। চালানপত্রে ‘মূল্য সংযোজন কর এর পরিমাণ’ কলামে আমদানি পর্যায়ে পরিশোধিত মূসক ও স্থানীয় পর্যায়ের জন্য পরিশোধিত মূসকের পরিমাণ আনুপাতিক হারে যাহা হয় তাহা উল্লেখ করিতে হইবে। আমদানি পর্যায়ে পরিশোধিত মূসকের মোট পরিমাণকে জাহাজের মোট ওজন দিয়া ভাগ করিয়া টন প্রতি আমদানি পর্যায়ে পরিশোধিত মূসকের যে পরিমাণ পাওয়া যাইবে, সেই পরিমাণই হইবে আনুপাতিক হার। স্থানীয় পর্যায়ের ক্ষেত্রে দশ শতাংশ অপচয় বাদ দিয়া জাহাজের যে ওজন পাওয়া যাইবে তাহা দিা স্থানীয় পর্যায়ে পরিমোধিত করের মোট পরিমাণকে ভাগ দিয়া টন প্রতি স্থানীয় পর্যায়ে পরিশোধিত করের যে পরিমাণ পাওয় যাইবে, সেই পরিমাণই হইবে আনুপাতিক হার।

 

৮।দন্ড। এই বিধিমালার কোনো বিধান লঙ্ঘন করা হইলে লংঘনকারী ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট শিপ স্ক্র্যাপের ওপর প্রদেয় করের [অন্যূন সমপরিমাণ এবং অনূর্ধ্ব আড়াই গুন] পরিমাণ অর্থদন্ডে দন্ডনীয় হইবেন এবং উক্ত লঙ্ঘন যে শিপ স্ক্র্যাপ সম্পর্কিত সেই শিপস্ক্র্যাপও উহা পরিবহনে ব্যবহৃত যানবাহন সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা যাইবে।

 

 

শীপ ব্রেকিং ইয়ার্ড থেকে মূল্য সংযোজন কর আদায় সংক্রান্ত বিধিমালা

[বিধি-৫ দ্রষ্টব্য]

ঘোষণাপত্র

১। আমদানিকারকের নাম :
২। মূসক নিবন্ধন নম্বর :
৩। এলাকার কোড :
৪। শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড এর ঠিকানা :
৫। জাহাজের ওজন :
৬। আমদানি শুল্ক বন্দরের নাম :
৭। বিল অব এন্ট্রি নম্বর (যদিথাকে) (সত্যায়িত কপি সংযুক্ত করিতে হইবে) :
৮। বিল অব লেডিং নম্বর (সত্যায়িত কপি সংযুক্ত করিতে হইবে) :
৯। ইনভয়েস নং (সত্যায়িত কপি সংযুক্ত করিতে হইবে) :
১০। ঋণপত্রের কপি (সত্যায়িত কপি সংযুক্ত করিতে হইবে) :
১১। স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত শিপের ক্ষেত্রে ক্রয় সম্পর্কিত তথ্য (সত্যায়িত কপি সংযুক্ত করিতে হইবে)  

:

 

আমি এই মর্মে অঙ্গীকার প্রদান করিতেছি যে, উপরে বর্ণিত তথ্যাদি আমার জানামতে সঠিক। উক্ত তথ্যে পরবর্তীকালে কোনো প্রকার অসঙ্গতি পাওয়া গেলে মূল্য সংযোজন কর আইনের ৩৭ ধারা অনুযায়ী দন্ডনীয় হইবে।

 

আমদানিকারক/শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড এর পূর্ণ নাম

স্বাক্ষর (সিলসহ)

 

 

শীপ ব্রেকিং ইয়ার্ড থেকে মূল্য সংযোজন কর আদায় সংক্রান্ত বিধিমালা

[বিধি-৬ দ্রষ্টব্য]

প্রত্যয়নপত্র

 

এতদ্বারা প্রত্যয়ন করা যাইতেছে যে, মেসার্স (প্রতিষ্ঠানের নাম) ………………………………………………………………. নিবন্ধন নম্বর ………………… এলাকা কোড ……………………………….. শুল্ক ভবন / [কমিশনারেটের নাম] ………………………….. এর বি/ই নম্বর ………………………….. ক্রয় সম্পর্কিত তথ্য এর মাধ্যমে প্রাপ্ত জাহাজের মোট ওজন …………………………….. মেট্রিক টন এর দশ শতাংশ অপচয় বাদে সর্বমোট ………………………….. মেট্রিক টন এর মোট মূল্য……………………………. টাকা এবং আমদানি পর্যায়ে পরিশোধিত মূল্য সংযোজন কর ……………………. টাকা এবং নির্ধারিত মূল্যের ভিত্তিতে স্থানীয় পর্যায়ে মোট কর ………………….. টাকা অগ্রিম মূসক হিসেবে ট্রেজারি চালান নম্বর …………………… তারিখ …………………. এর মাধ্যমে পরিশোধ করিয়াছে।

 

বিভাগীয় কর্মকর্তার

স্বাক্ষর ও সিল

তারিখ:

 

নথিনং-                                                                                                                          তারিখ:

 

অনুলিপি:

প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণার্থে ট্রেজারি চালানের সত্যায়িত কপিসহ কমিশনার [আমদানি] এর নিকট বিশেষ বাহক মারফত প্রেরণ করা হইল :

 

০১।        কমিশনার, শুল্ক ভবন, ………………………………………….  (ঠিকানা)।

 

০২।       কমিশনার, কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট, ……………………….. (ঠিকানা)।

তাং                                                                                                       বিভাগীয় কর্মকর্তার স্বাক্ষর ও সিল

 

                                                       জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আদেশক্রমে,

                                                      ডঃ মোঃ রফিকুল ইসলাম

                                                    প্রথম সচিব

                                                       মূসক (নীতি ও বাজেট)

Share Button